Tanvir Shahriar Rimon

Share on facebook
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on email

সিএমপি আমাদের বিল্ডিং লক ডাউন করে দিয়ে যায় রাতে !

0

পরশু (১৮ মে) বিকালে একটি জরুরি কাজ শেষে আমাদের বিল্ডিংয়ে ঢুকার সময় দেখি বেশ জটলা । আমাকে দেখে বিল্ডিং এর ম্যানেজার ইলেক্টিশিয়ান, সিকিউরিটি গার্ড দৌড়ে আসল ।
-স্যার ঘটনা তো খারাপ ?
-কী হইছে ? আর তোমাদের এরকম আতংকিত লাগছে কেন ?
-স্যার, আমাদের বিল্ডিং এ করোনা পাওয়া গেছে মনে হয় !
-কী যা তা বলছ তোমরা ?
-জি স্যার । টেস্টের জন্য উনাদের (সাসপেক্টেড ব্যক্তির নাম বলল) সেম্পল নিয়ে গেছে । আর দেখলাম অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়া উপরে গেছে উনাদের কিছু লোকজন !

আমি যেহেতু অ্যাপার্টমেন্ট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক তাই তারা আমার কাছ থেকে কিছু করণীয় জানতে চাইল ।

-শোনো, ভয় পেওনা । সাবধান থাকো । ছাদ লক করে দাও । আর অপ্রয়োজনে কেউ যেন বাসা থেকে বের না হন, প্রত্যেক ফ্ল্যাটে ফোন করে বলে দাও । তবে যেহেতু টেস্ট রেজাল্ট আসেনি কোনো অবস্থায় আগাম কিছু বলতে যেওনা । আমি স্পষ্ট করে বললাম তাদের ।
-আচ্ছা স্যার । আমরা ফোন করে বলে দিচ্ছি ।
-খেয়াল রাখবা কোনো আতংক যেন কেউ না ছড়ায় ।

আমি বাসায় পৌছে গোসল সেরে ইফতার করলাম । ইফতার করে আমার ওই করোনা সাসপেকটেড প্রতিবেশির বাসায় ইন্টারকমে ফোন দিলাম । ভাবী ফোন ধরলেন ।
-ভাবী, আমি তানভীর । খবর শুনেছি । আপনারা ভয় পাবেন না । মন শক্ত রাখেন । আর আমার নাম্বার রাখেন । আমি ২৪ ঘন্টা মোবাইল খোলা রাখি । এই বিপদে যেকোনো প্রয়োজনে ফোন করতে সংকোচ করবেন না ।

ভাবী নিজে ডাক্তার । তিনি বললেন, ভাই আমি আপনার নাম্বারটা লিখে নিই । তিনি আমাকে লাইনে রেখে নাম্বার লিখে নিলেন ।

কিছুক্ষণ পর উনাদের বড় ভাই আমাকে ফোন দিলেন ।
-তানভীর ভাই, সবাইকে মনে হয় ঝামেলায় ফেলে দিলাম । সরি ভাই !
-কি বলছেন ভাই ! সরি কেন হবেন ! এটা যে কারো হতে পারত । ভাইয়ের শারিরীক খবর জানাবেন । আর যেকোনো প্রয়োজনে আমাকে ফোন করবেন ।

গতকাল রাতেই (১৯ মে) টেস্ট রেজাল্ট চলে আসে । খবর পাই যে শুধু ভাই নন, ভাবীও কভিড পজিটিভ । মনটা ভীষণ খারাপ হয়ে যায় । সিএমপি থেকে এসে আমাদের বিল্ডিং লক ডাউন করে দিয়ে যায় রাত ১১ টার দিকে ।

কথা হয় ডিসি নর্থ বিজয় বসাক দার সাথে । দাদা বলেন, যেকোনো প্রয়োজনে ফোন করবেন । আমরা আপনাদের সাথে আছি । আহা! কী মানবিক পুলিশ !

একটু পর এসি পাঁচলাইশ দেবব্রত দা আসলেন । আমাকে ফোন করে একটু নিচে নামতে অনুরোধ করলেন ।
আমাকে সাহস দিয়ে কিছু দিক নির্দেশনা দিয়ে দাদা চলে গেলেন ।

বাসায় ফিরে আমি সেই কভিড পজিটিভ প্রতিবেশির ইন্টারকমে ফোন দিই ।
ফোন ধরেন তার বড় ভাই
-তানভীর ভাই, আমি আপনাকে ফোনে ট্রাই করছিলাম । বিজি দেখাচ্ছিল ।
-জি ভাইয়া, একটু কথা বলছিলাম । ভাই মন শক্ত রাখেন । ইনশাআল্লাহ সব ঠিক হয়ে যাবে ।
-ভাই, সবাইকে বলবেন আমরা খুব দু:খিত । আমাদের কারনে অনেকের কষ্ট হবে ।
-না না ভাই, এভাবে বলবেন না প্লিজ । আমরা সবাই আপনাদের পাশে আছি । যেকোনো প্রয়োজনে আমাকে জানাবেন । আমরা সবাই ভাই এবং ভাবীর জন্য দোয়া করছি । উনারা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন ।

এর মাঝেই আমরা বিল্ডিং লক ডাউন করেছি । ছাদ বন্ধ করেছি । লিফ্ট স্যানিটাইজ করেছি । সাথে লিফ্ট ব্যবহারের জন্য কিছু দিক নির্দেশনা দিয়েছি । যে বাসায় কভিড পজিটিভ পেশেন্ট আছেন তারা নিশ্চিত করেছেন তাদের বাসা থেকে কেউ বের হবেন না । খাবার কিংবা ওষুধ প্রয়োজন হলে আমাদের বিল্ডিং এর ব্যবস্থাপক কাওসার কিংবা ইলেক্টিশিয়ান মোজাম্মেল নিজেদের সুরক্ষা পোশাক পরে তা তাদের বাসায় পৌছে দেবে ।

আর একটা কথা, যারা ভাবেন করোনা রোগী মানেই অস্পৃশ্য-তারা দয়া করে এমনটা ভাবা বন্ধ করুন । একটু অসাবধানতায় যে কেউ সংক্রমিত হতে পারেন । তাই দয়া করে বাসায় অবস্থায় করুন । বেঁচে থাকলে, সুস্থ থাকলে অনেক আনন্দ ঈদ করা যাবে ।

আমার এবং আমার পরিবারের জন্য দোয়া করবেন । আল্লাহ সবাইকে নিরাপদে রাখুন । স্টে হোম, স্টে সেইফ !

Leave a Reply